এক মাসে সবচেয়ে কম মৃত্যু যুক্তরাজ্যে

বিশ্বে করোনা থেকে সেরে উঠেছে ১০ লাখ মানুষ

গত এক মাসের মধ্যে ব্রিটেনে একদিনে সবচেয়ে কমসংখ্যক মানুষের প্রাণ কেড়েছে নভেল করোনাভাইরাস। দেশটির স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ বলছে, ব্রিটেনে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ৩৫০ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২১ হাজার ছাড়িয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি বলছে, ইংল্যান্ডে করোনা পজিটিভ আরও ৩২৯ জন মারা গেছেন। যাদের প্রত্যেকের বয়স ২৯ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে। এছাড়া স্কটল্যান্ডে ১৩ এবং ওয়েলসে ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ৩০ মার্চের পর দেশটিতে করোনায় একদিনে সবচেয়ে কমসংখ্যক মানুষ মারা গেছেন গত ২৪ ঘণ্টায়।

এদিকে, করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে জারিকৃত লকডাউন শিথিল করা হলে যুক্তরাজ্যে এক লাখের মানুষের প্রাণহানি ঘটতে পারে বলে দেশটির শীর্ষস্থানীয় এক মহামারি বিশেষজ্ঞ সতর্ক করে দিয়েছেন। করোনা মহামারি মোকাবিলায় ব্রিটিশ সরকারের পরামর্শক হিসাবে কর্মরত বিজ্ঞানী নীল ফার্গুসন এই শঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

তিনি বলেছেন, করোনাভাইরাসের মৃত্যুর সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে আছেন কেয়ার হোমের বাসিন্দা এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যায় যারা ভুগছেন। আমরা জনগণকে রক্ষার জন্য একটি টেকসই কৌশল প্রণয়ন করতে পারবো কিনা, সেটি নিয়ে আমি খুবই সংশয়ে রয়েছি। লকডাউন শিথিলের কথা উল্লেখ করে এসব কথা বলেন তিনি।

অন্যদিকে, করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে এক মাস শেষে সোমবার কাজে ফিরেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ব্রিটেনে জারিকৃত লকডাউন শিথিল করতে দেশটির সরকারের ওপর চাপ বাড়ছে। এমন পরিস্থিতিতে বরিস জনসন লকডাউন শিথিল করার বিষয়ে সরকার এখনও কোনো চিন্তা-ভাবনা করছে না বলে জানিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, যুক্তরাজ্য করোনাভাইরাসের পিক টাইম এখনও পার করছে। মৃতের সংখ্যা কমে এলেও লকডাউন শিথিলের পরিকল্পনা নেই। লকডাউন শিথিল হলে দ্বিতীয় ধাপের সংক্রমণ শুরু হবে; যা ভয়াবহ বিপদ ডেকে আনতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন তিনি।

এসআইএস/পিআর