ক্ষতিগ্রস্ত জুয়েলার্স ও স্বর্ণশিল্পীদের বিশেষ প্রণোদনা দাবি

ক্ষতিগ্রস্ত জুয়েলার্স ও স্বর্ণশিল্পীদের বিশেষ প্রণোদনা দাবি
  • 2
    Shares

বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত জুয়েলার্স ও স্বর্ণশিল্পীদের জন্য বিশেষ প্রণোদনার দাবি করেছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস)।

জুয়েলারি ব্যবসায়ীদের জন্য স্বল্প সুদে দীর্ঘ মেয়াদী ঋণ এবং নিম্ন আয়ের স্বর্ণশিল্পীদের রেশন সুবিধার আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।

রোববার (২৬ এপ্রিল) বাজুসের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা স্বাক্ষরিত এক বার্তায় এসব দাবি জানানো হয়।

বাজুস বলছে, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় গত ২৫ মার্চ থেকে দেশব্যাপী কার্যত লকডাউন চলছে। সরকার কয়েক দফায় সাধারণ ছুটি বাড়িয়ে ৫ মে পর্যন্ত ঘোষণা করেছে। জরুরি প্রয়োজন মোকাবিলায় আইন শৃঙ্খলা বাহিনী, চিকিৎসাসেবা, খাদ্য সরবরাহকরী প্রতিষ্ঠান ও সীমিত আকারে ব্যাংকিং কার্যক্রম চলছে। ফলে অন্যান্য সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান হুমকিতে হয়েছে। বিশেষ করে জুয়েলারি শিল্প।

স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের সংগঠনটির দাবি, সারাদেশে প্রায় ১৮ হাজার নিবন্ধিত ছোট, বড় ও মাঝারি আকারের জুয়েলারি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এ শিল্পের সঙ্গে ৮০ হাজার স্বর্ণশিল্পী যুক্ত রয়েছেন। তবে আনুসাঙ্গিক সব মিলিয়ে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় ২৮ লাখ মানুষ এ শিল্পে জড়িত। করোনায় দীর্ঘ বন্ধের কারণে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের নাভিশ্বাস অবস্থা। স্টাফদের বেতন, দোকান ভাড়া তাদের জন্য মরার উপর খাড়ার ঘা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই প্রাচীন ও সম্ভাবনাময়ী এ শিল্পকে বাঁচাতে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের জন্য প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত প্রণোদনার একটি অংশ স্বল্প সুদে দীর্ঘ মেয়াদে ঋণ চান জুয়েলারি ব্যবসায়ীরা। যাতে ক্ষতিগ্রস্ত জুয়েলার্সরা কর্মচারীদের বেতন ভাতা, দোকান ভাড়াসহ অন্যান্য সমস্যা মোকাবিলা করতে সক্ষম হয়।

নিম্ন আয়ের স্বর্ণশিল্পীদের রক্ষার্থে তালিকা করে রেশনকার্ড বিতরণ করে সরকারের রেশন সুবিধার আওতায় আনার জন্য বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছে বাজুস।

এসআই/এএইচ/পিআর