গত বছর এই দিনেই ওয়ানডে ক্রিকেটে ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলো উইন্ডিজ

গত বছর এই দিনেই ওয়ানডে ক্রিকেটে ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলো উইন্ডিজ

ঠিক এক বছর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের দুই ব্যাটসম্যান যে রেকর্ড সৃষ্টি করেছিল, তা অবাক করে দিয়েছে পুরো ক্রিকেট বিশ্বকে। ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে ব্যাট করতে নেমে বিচ্ছিন্ন হওয়া তো দুরে থাক, রানের বন্যা বইয়ে দিচ্ছিল ক্যারিবীয় দুই ওপেনার জন ক্যাম্পবেল এবং সাই হোপ।

উদ্বোধনী উইকেটে অনবদ্য ৩৬৫ রানের জুটি গড়েছিলেন ক্যাম্পবেল আর হোপ। বিশ্বকাপের ঠিক আগ মুহূর্তে এতবড় জুটি দেখে সবাই ঘাবড়ে গিয়েছিল, বিশ্বকাপে এসে এই ওয়েস্ট ইন্ডিজ না আবার কি করে বসে!

ডাবলিনের ক্যাসল এভেনিউতে স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে এই রেকর্ড গড়ে ক্যারিবীয়রা। মূলতঃ তিনজাতি টুর্নামেন্টে রেকর্ডটি গড়েন ক্যাম্পবেল আর হোপ। ওই টুর্নামেন্টের বাকি দেশটি ছিল বাংলাদেশ। ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে শিরোপা জিতে নিয়েছিল মাশরাফি বিন মর্তুজার দল।

প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে নিজেদের সামলে নিতে একটু বেগ পেতে হয়েছে দুই ক্যারিবীয় ওপেনারকে। একটু সেট হয়ে যাওয়ার পরই আসল খেলাটা শুরু করে তারা। আইরিশ বোলারদের ওপর রীতিমত স্টিমরোলার চালাতে শুরু করে তারা দু’জন।

জন ক্যাম্পবেল খেলেন ১৭৯ রানের ইনিংস। ১৫টি বাউন্ডারি এবং ৬টি ছক্কার মার মারেন তিনি। সাই হোপ করেন ১৭০ রান। বাউন্ডারি ২২টি এবং ২টি ছক্কার মার মারেন।

দু’জন গড়েন প্রথম উইকেট জুটিতে বিশ্ব রেকর্ড ৩৬৫ রানের ইনিংস। শেষ পর্যন্ত ৪৮তম ওভারে গিয়ে জুটি ভাঙে। এক ওভারেই দুই সেট ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে পাঠিয়ে দেন ব্রায়ান ম্যাকআর্থি। জেসন হোল্ডারকে ফিরিয়ে দেন মার্ক অ্যাডেয়ার। ৩ উইকেটে শেষ পর্যন্ত ৩৮১ রান করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আয়ারল্যান্ড অলআউট হয়ে যায় ১৮৫ রানে এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচ জেতে ১৯৬ রানের বিশাল ব্যবধানে।

তবে ওয়ানডে ক্রিকেটে আরও বড় জুটি রয়েছে। সেটা দ্বিতীয় উইকেটে এবং গড়েছিলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের আরেক জুটি। ক্রিস গেইল এবং মারলন স্যামুয়েলস। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২০১৫ বিশ্বকাপে ৩৭২ রানের বিশাল জুটি গড়েছিলেন তারা দু’জন। আর প্রথম উইকেট জুটিতে এর আগের রেকর্ড ছিল ৩০৪ রানের। পাকিস্তানের ফাখর জামান এবং ইমাম-উল হক।