সবুজ ফসলের মাঠে বেগুনি ধানের চাদর

সবুজ ফসলের মাঠে বেগুনি ধানের চাদর
  • 8
    Shares

ফসলের মাঠ জুড়ে সবুজ ধানখেত। তার মাঝে একখণ্ড জমিতে বেগুনি রঙের ধানের আবাদ। সবুজের মাঝে বেগুনি রং ফসলের মাঠের সৌন্দর্য বাড়িয়েছে বহুগুণ। দূর থেকে দেখে মনে হয় সবুজের প্রকৃতির বুকে বেগুনি রঙের চাদর বিছানো।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের মাইজভাগ ইউনিয়নের হারুয়া গ্রামের ফসলের মাঠে প্রকৃতির এই মনোরম এই দৃশ্য ধরা পড়ে।

উপজেলা কৃষি বিভাগের সহায়তায় বোরো মৌসুমে বেগুনি রঙের ধান আবাদ করেছেন হারুয়া গ্রামের কৃষক চাঁন মিয়া।

স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তারা জানান, উপজেলায় এবারই প্রথম বেগুনি রঙের ধানের চাষাবাদ হচ্ছে। সৌন্দর্য ও পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ এই ধান গাছের পাতা ও কাণ্ডের রং বেগুনি। তাই কৃষকদের কাছে এই ধান বেগুনি রঙের ধান বা রঙিন ধান নামে পরিচিত।

জানা গেছে, উপজেলার মাইজবাগ ইউনিয়নের হারুয়া গ্রামের আদর্শ কৃষক চাঁন মিয়া। চলতি বোরো মৌসুমে হারুয়া ব্লকের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সোহেল রানার পরামর্শ ও সহযোগিতায় বাড়ির পাশে দশ শতক জমিতে বেগুনি রঙের ধানের আবাদ করতে উদ্যোগী হন। পরে ওই কৃষি কর্মকর্তা হালুয়াঘাট উপজেলা থেকে বেগুনি রঙের ধানের বীজ সংগ্রহ করে দেন তাকে। পরীক্ষামূলকভাবে ধানের বীজ থেকে চারা উৎপাদন করে জমিতে রোপণ করেন চাঁন মিয়া। কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শ ও সঠিক পরিচর্যায় ধানের চারা ধীরে ধীরে বড় হয়ে উঠে। সবুজ ফসলের মাঠে উঁকি দিতে থাকে বেগুনি রঙের ধান।

এদিকে বেগুনি রঙের ধান চাষের খবর ছড়িয়ে পড়ার পর প্রতিদিন স্থানীয়রা এক নজর দেখতে ভিড় জমান চাঁনমিয়ার ধানখেতে। উৎসুকদের অনেকেই মেতে উঠছে ছবি ও সেলফি তোলার প্রতিযোগিতায়।

কৃষক চাঁন মিয়া বলেন, কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী দশ শতক জমিতে বেগুনি রঙের ধানের আবাদ করেছি। ধানের ফলন ভালো হয়েছে।  ইতিমধ্যে অনেকেই ধানের বীজ সংগ্রহের জন্য যোগাযোগ করছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাধন কুমার গুহ মজুমদার বলেন, চাঁন মিয়ার দেখাদেখি অন্যান্য কৃষকরাও বেগুনি রঙের ধান চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছে। আগামী মৌসুমে কৃষকদের এই ধানের বীজ সরবরাহ করাটাই চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াবে।